কবি হয়ে উঠা প্রতিভাবান খোকন সরদার2 মিনিটে পড়ুন

154

একজন মানুষের জীবন একটি মহাকাব্য, একটি বিশাল উপন্যাস কিংবা অসংখ্য ছোটগল্পের সমাহার। যেভাবেই বলেন, তা বর্ণনা করা, চিত্রণ করা অসম্ভব না হলেও কঠিন শ্রমসাধ্য ও অনেক ক্ষেত্রে দুঃসাধ্য ব্যাপার। তবু জীবন যাপিত হয় আপন নিয়মে।

আমেরিকান লেখক ও শিল্পী ফ্র্যাঙ্ক লয়েড তার বিখ্যাত উক্তিতে বলেছিলেন -সাফল্যের জন্য তোমাকে ৩টি মূল্য দিতে হবে: ভালোবাসা, কঠোর পরিশ্রম, আর স্বপ্নকে বাস্তব হতে দেখার জন্য ব্যর্থতার পরও কাজ করে যাওয়া।”

স্বপ্নকে বাস্তব হতে দেখার জন্য ব্যর্থতার পরও কাজ করে যাওয়া এমনই এক প্রতিভার জন্ম প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে কবি হয়ে উঠা নাম মোঃ খোকন সরদার,
১৯৮৭ সালের ২২শে জুলাই, বগুড়া সদর উপজেলার শাখারিয়া ইউনিয়নের গোপালবাড়ি গ্রামে এক মুসলিম পরিবারে জন্ম এই কবিতা লেখকের।

পেশা হিসাবে একজন চিত্রশিল্পী হলেও ছোট বেলা থেকেই তার কবিতা লেখার শখ জাগে, এক পা দু পা করে কবিতা লিখতে লিখতে তার জীবনে কবিতা লিখেছে প্রায় ২৫০টি, তারমধ্যে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় এবং বইয়ে প্রকাশ পেয়েছে ২৫টি কবিতা।

এরই মধ্যে তার লেখা উল্লেখযোগ্য একটি কাব্যগ্রন্থের স্মারক উন্মোচিত হতে যাচ্ছে যার নাম “রজক”।
এছাড়াও যৌথ কাব্যগ্রন্থ ‘তোমার অপেক্ষায়’ বইয়ে তার একটি কবিতা প্রকাশ পেয়েছে, কবিতাটির নাম “মাতাল”

ক্ষুদে এই কবির ইচ্ছে সমাজের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড কবিতার মাঝে তুলে ধরা।
খোকন সরদার একজন এসোসিয়েশন ফর কমার্শিয়াল আর্টিস্ট এর সক্রিয় সদস্য ও বাংলাদেশ মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের সদস্য।

ক্ষুদে এই প্রতিভাবান কবি ও শিল্পীর জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্নভাবে শুভ কামনা জানিয়েছেন গুনীজনরা।