শাজাহানপুরে ইউনিয়ন যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদকের পর্নো ভিডিও ভাইরাল3 মিনিটে পড়ুন

50

আরিফুর রহমান মিঠু, শাজাহানপুর(বগুড়া)প্রতিনিধিঃ বগুড়া শাজাহানপুর উপজেলার চোপিনগর ইউনিয়ন যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর হোসেন(৪২)’র পর্নো ভিডিও ইন্টারনেটে ভাইরাল হয়েছে। সে ওই ইউনিয়নের বিরিকুল্লা গ্রামের সামির উদ্দিনের ছেলে। মেসেঞ্জার এ্যাপসের মাধ্যমে এখন তা মোবাইল ফোনে সবার হাতে হাতে পৌঁছেছে। ভিডিওটি কার মাধ্যমে কিভাবে ছড়িয়েছে সে ব্যপারে এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। বিএনপি দলীয় কোন্দলের জের ধরে ভিডিও এডিটিং করে ছাড়া হয়েছে বলে দাবী করেছেন জিল্লুর রহমান। এ ঘটনায় দলীয় নেতা কর্মীদের মাঝে চাঞ্চল্যের সৃস্টি হয়েছে।

পর্নো ভিডিও করা এবং সে দায় দলীয় নেতা কর্মীদের দেয়ার অপরাধে দলীয় সব ধরনের পদ থেকে অব্যহতি দেয়ার দাবী তুলেছেন স্থানীয় নেতা কর্মীরা। সম্প্রতি জিল্লুর বিদেশে মিশনে থাকা এক সেনা সদস্যর স্ত্রীকে বিয়ে করেন। সেই স্ত্রীর কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেয়া এবং ভরন পোষন না দেয়ায় ২৬অক্টোবর শাজাহানপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন।
জিল্লুর হোসেন জানান, শাজাহানপুর উপজেলা যুবদলের কমিটি গঠন হতে যাচ্ছে। এই কারণে তার প্রতিপক্ষরা পর্নো ভিডিও এর সাথে তার ছবি জুড়ে ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দিয়েছে।
ওই স্ত্রী জানান, তাকে বিয়ের আগ পর্যন্ত অবিবাহিত ছিলো জিল্লুর। তার মত অনেকের জীবন নস্ট করেছে এই লোক। বিয়ে করার পরেও কাবিন বাতিলের দাবীতে তার উপরে মামলা করেছে। তার কাছ থেকে হাতিয়ে নেয়া টাকা ফেরৎ দেয়নাই। সংসার খড়চ এক টাকাও দেয়না। তিনি খুব কস্টের মধ্যে জীবন যাপন করছেন বলে মোবাইল ফোনে জানিয়েছেন। পর্নো ভিডিও প্রকাশ হওয়ার খবর তিনি শুনেছেন তবে ভিডিওর সেই নারী তিনি নন বলে নিশ্চিৎ করেছেন। জিল্লুরকে খারাপ লোক আখ্যায়িত করে তিনি বলেন, এমন লোক যে কোন সময় যেকোন নারীরই ক্ষতি করতে পারে।
উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের যুবদল, বিএনপি এবং সহযোগী সংগঠনের অনেক নেতা কর্মী জানান, জিল্লুর মতো লোক দল এবং সমাজের জন্য ক্ষতিকর। তার দৃস্টান্ত মূলক শাস্তি সহ দলীয় সকল সদস্য পদ থেকে স্থায়ী বহিস্কার দাবী বরেছেন।
এ ব্যপারে জেলা যুবদলের আহŸায় খাদেমুল ইসলাম খাদেম মোবাইল ফোনে জানান, বর্তমানে তিনি বাহিরে থাকায় বিষয়টি এখনো পুরো জানেন না। ফিরে তদন্ত স্বাপেক্ষে সত্যতা পাওয়া গেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেবেন।