বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে বগুড়ায় বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস পালিত5 মিনিটে পড়ুন

27

স্টাফ রিপোর্টার

বগুড়া ডায়াবেটিক সমিতির ব্যবস্থাপনায় যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হলো বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস-২০২০। ডায়াবেটিস সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে প্রতি বছর ১৪ নভেম্বর’কে ‘বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস’ হিসেবে পালন করা হয়। বিগত কয়েক বছর থেকে এ দিবসটি জাতিসংঘ দিবস হিসাবে পালিত হয়ে আসছে।আইডিএফ এ বছর দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় নির্ধারন করেছে ‘নার্স ও ডায়াবেটিস’ অর্থাৎ ডায়াবেটিস সেবায় পার্থক্য আনতে পারেন নার্সরাই। চলমান করোনা পরিস্থিতির কারনে র‌্যালীর পরিবর্তে এবছর স্বাস্থ্যবিধি মেনে মানববন্ধন-এর আয়োজন করা হয়।
দিবসের অন্য কার্যক্রমগুলির মধ্যে ছিল সকাল ১০টায় সমিতির হলরুমে আলোচনা সভা, ১১টায় ওয়ার্ল্ড ডায়াবেটিস ফাউন্ডেশন (ডব্লিউডিএফ)-এর ‘গ্লোবাল ডায়াবেটিস ওয়াক ২০২০’ প্রোগ্রামে অংশগ্রহনকারীদের মাঝে ক্রেষ্ট বিতরণ অনুষ্ঠান এবং হাসপাতালে আগত ২ শতাধিক রোগীর ডায়াবেটিস পরীক্ষার সাথে বিনামূল্যে লিভার ও কিডনী ফাংশন পরীক্ষা করানো। সকাল ৯টায় শহরের জিরো পয়েন্ট সাতমাথায় বেলুন উড়িয়ে মানববন্ধনের উদ্বোধন করা হয়। এসময়  উপস্থিত ছিলেন বগুড়া ডায়াবেটিক সমিতির সহসভাপতি মোঃ মাহমুব হামিদ তারা, এবিএম জহুরুল হক বুলবুল, যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল ওয়াহাব তারেক, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ আব্দুল্লাহেল কাফী-ছানা, দপ্তর সম্পাদক একেএম ফজলুল হক রেন্টু, কোষাধ্যক্ষ (চলতি দায়িত্ব) মোঃ মাসুদুর রহমান মিলন, নির্বাহী সদস্য মোঃ আব্দুল খালেক বাবলু, এএম রেজাউল হক (মন্টু), তোফাজ্জল হোসেন, আবু সাঈদ মোঃ মেরুন, এম এ জিন্নাহ, শাহেদ জাবেদুর, মিজানুর রহমান, সিভিল সার্জন অফিসের সিনিঃ স্বাস্থ্য শিক্ষা অফিসার মোঃ আব্দুল হান্নান, পরিসংখ্যানবিদ শাহারুল ইসলাম খানসহ আরও অনেকে।

সাতমাথা থেকে সার্কিট হাউজ পর্যন্ত ‘মানববন্ধনে’ ডায়াবেটিস সম্পর্কে জনসচেতনামূলক ব্যানার নিয়ে অংশগ্রহন করেন হাসপাতালের সকল চিকিৎসক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ। মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন বগুড়া ডায়াবেটিক সমিতির নির্বাহী কমিটির সদস্যবৃন্দ, আজীবন সদস্যবৃন্দ ও বিভিন্ন ফার্মাসিউটিক্যালস কোম্পানীর প্রতিনিধিগণ। পাশাপাশি শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতেও দিনব্যাপী মাইকে ডায়াবেটিস সম্পর্কে জনসচেতনামূলক বানী প্রচার করা হয়।

মানববন্ধন শেষে বগুড়া ডায়াবেটিক সমিতির হলরুমে গাইনী বিশেষজ্ঞ ডাঃ রোকশানা বানুর সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন শিশু বিশেষজ্ঞ ডাঃ মোঃ আলী আশরাফ, সিনিয়র মেডিকেল অফিসার ডাঃ আলী আজাদ মিলন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সিনিয়র হিসাব রক্ষক মোঃ সুরুজ্জামান।

আলোচনা সভায় ডায়াবেটিক চিকিৎসায় নার্সদের ভূমিকা নিয়ে বক্তারা বলেন, নার্সরা যদি আন্তরিক হয়ে রোগীদের ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখার কৌশল শিখিয়ে দিতে পারেন তাহলে ডায়াবেটিস সেবায় বিশাল বদল আসবে। এজন্য নার্সদের উপযুক্ত প্রশিক্ষণ দেয়া প্রয়োজন। সারা বিশে^ বিশেষ করে আমাদের দেশে দক্ষ নার্সের অভাব খুবই প্রকট। এ কারণে দক্ষ নার্স সৃষ্টির উদ্যোগও আমাদের অব্যাহত রাখতে হবে।

বক্তারা আরও বলেন, ২০৪৫ সাল নাগাত বিশে^ ডায়াবেটিস রোগী সনাক্ত হবে আনুমানিক ১০০ কোটি। সনাক্তের বাহিরেও থেকে যাবে আরও অনেক। অন্ধত্ব, অঙ্গহানি, হৃদরোগ, কিডনী জটিলতা এবং অকাল মৃত্যুর অন্যতম কারনই হচ্ছে ডায়াবেটিস। কাজেই ডায়াবেটিস প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে এখন সজাগ হতে হবে এবং ডায়াবেটিস থেকে আগামী প্রজন্মকে রক্ষা করতে হবে।

এরপর সকাল ১১টায় হাসপাতালের ৬ষ্ঠ তলার কনফারেন্স রুমে ওয়ার্ল্ড ডায়াবেটিস ফাউন্ডেশনের ‘গ্লোবাল ডায়াবেটিস ওয়াক ২০২০’-এ অংশগ্রহনকারী সমিতির নির্বাহী কর্মকর্তাদের মাঝে সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়। ক্রেষ্ট বিতরণ করেন বগুড়া ডায়াবেটিক সমিতির সহসভাপতি, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এবং বগুড়ার কৃতি ক্রিকেটার মুশফিকুর রহিমের পিতা মোঃ মাহবুব হামিদ তারা।

বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস উপলক্ষ্যে সমিতি প্রাঙ্গনে নবনির্মিত ফার্মেসীর উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধন করেন বগুড়া চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ড্রাষ্ট্রিজের সভাপতি মোঃ মাসুদুর রহমান মিলন ও বগুড়া ডায়াবেটিক সমিতির সহ সভাপতি মোঃ মাহমুব হামিদ তারা। উল্লেখ্য বগুড়ার স্বনামধন্য ঔষুধ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সবুজ মেডিকেল হল, বগুড়া ডায়াবেটিক সমিতি প্রাঙ্গণে নবিনির্মিত ফার্মেসীর দোকানে সবুজ মেডিকেল হল প্লাস নামে একটি মডেল ফার্মেসী চালু করেছে