বগুড়া সদরের পীরগাছা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতির বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে বগুড়া প্রেস ক্লাবে সংবাদ সন্মেলন

140

—————————————————————
আকাশ স্টাফ রিপোর্টারঃ বুধবার দুপুরে বগুড়া সদরের পীরগাছা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির সেচ্ছাচারিতা, স্কুলের জন্য ক্ষুদ্র মেরামতের কাজ শেষ হতে না হতেই অর্থ তছরুপের জন্য তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগের কারনে বগুড়া প্রেস ক্লাবে সংবাদ সন্মেল অনুষ্ঠিত হয়।
সংবাদ সন্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ম্যানেজিং কমিটির সাবেক সভাপতি ও বর্তমান সহ সভাপতি খলিলুর রহমান। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, বর্তমান ম্যানেজিং কমিটির মনোনিত সভাপতি রেজাউল করিম পান্না আকন্দ। অত্র বিদ্যালয়ের ক্ষুদ্র মেরামতের জন্য তিনটি ক্যাটাগরিতে সরকারীভাবে দু’ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। সে কাজ সম্পূর্ণ করার জন্য ৫ সদস্য বিশিষ্ট ক্রয় কমিটি করা হয়। কমিটির কোন সদস্যদেরকে ছাড়াই সভাপতি নিজে এবং প্রধান শিক্ষকের সাথে আতাত করে কাজ করা শুরু করে।
কাজ শেষ না হতেই : সভাপতি কর্তৃক ক্ষুদ্র মেরামতের টাকা তছরুপের অভিযোগ উঠে। এব্যাপারে ক্রয় কমিটির সদস্যরা সভাপতির কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে বলে যে আমি কাজ কি ভাবে করব না করব তা কি তোমাদেরকে জবাব দিতে হবে? তোমার স্কুল থেকে বের হয়ে যাও। ইতিমধ্যে তিনি ওয়ালে ৪ টি লেমিনেটিং করা ছবি ও ওয়ালে কিছু লেখালেখি করেছে। এতে অনুমান ১৫/২০ হাজার টাকা খরচ হয়। তাতে অনেক টাকা ভাউচার দেওয়া হয়েছে। তিনি আরও বলেন, স্কুল নির্মানের পর ছাত্র/ ছাত্রীদের খেলার মাঠের জন্য এলাকার গজেন্দ্র, রহেন্দ্র ও দিজেন চন্দ্র, মৃত বকুল চন্দ্র গণ ২৬ শতাংশ জমি দান করেন, সেখানে সরকারি অর্থায়নে ৪০ দিনের কর্ম সূচির প্রায় ২ লক্ষ টাকার মাটি ভরাট করা হয়। যা বর্তমানে স্কুলের নামে রেকর্ড হয় এবং স্কুল কর্তৃপক্ষ সকল প্রকার খাজনা পরিশোধ করে আসিতেছে। জমিটি অবৈধভাবে দখল নেওযার জন্য এলাকার কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তিদের সাথে যোগসাজসে বর্তমান সভাপতি রেজাউল করিম পান্না আকন্দ জমি দাতাদের অংশীদারদের সাথে আতাত করেছে। ইতিমধ্যে আমরা জানতে পেরেছি সভাপতি পান্না আকন্দ সরকারী ঔ জমির মধ্য থেকে ৪ শতাংশ জমি অনুমান ১৫ লক্ষ টাকায় বিক্রী করে। এলাকার শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিদের বাধার কারণে ক্রেতাগণ দখল নিতে না পারাই তাদের বিরুদ্ধে দাতা সদস্যগণের ওয়ারিশ ও কুচক্রী মহলের সহযোগীতায় বাদীগণ ঐসব নিরিহ ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে মিথ্যা চাঁদাবাজী মামলা দায়েন করে, যা আদালতে চলমান।
এখানেই শেষ নয়, ঐ কুচক্রী মহল বর্তমান সভাপতির সহযোগীতায় স্কুলের জমি জবর দখল করার জন্য তারা প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। গত ২২/১১/২০ ইং তারিখে সভাপতির বিরুদ্ধে বগুড়া থেকে প্রকাশিত কয়েকটি দৈনিক পত্রিকায় সংবাদ পরিবেশন হয়েছে। তিনি সাংবাদিকদের উদ্যেশে বলেন, আপনাদের মাধ্যমে সরকারী সম্পত্তি জবর দখলের চেষ্টা কারীদের বিরুদ্ধে লেখনির মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানের সার্থে সমাজে তাদের নোংড়া মুখোশ উন্মোচন করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সরকারী স্ংশ্রিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্ত ক্ষেপ কামনা করেন। সংবাদ সন্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, ম্যানেজিং কমিটির সদস্য শাহনাজ, নুর আলম, অভিভাবক সদস্য রঞ্জু লাবু।