বগুড়ার ধুনটে কিশোরী ধর্ষণ মামলার দুই সহযোগী কারাগারে2 মিনিটে পড়ুন

31

এম.এ রাশেদ, স্টাফ রিপোর্টারঃ

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় কিশোরী ধর্ষণের অভিযোগে দায়ের করা মামলার দুই ব্যক্তি কে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ। ৪ ডিসেম্বর তাদের ধুনট থানা থেকে বগুড়া জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন উপজেলার গোপাল নগর ইউনিয়নের দেউরিয়া গ্রামের ইব্রাহিমের ছেলে আব্দুল মান্নান (৪০) ও রিপন হোসেনের স্ত্রী সাথী খাতুন (৩৬)। তাদেরকে ৩ ডিসেম্বর রাতে নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করেন পুলিশ।

মামলার ও থানার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার গোপালনগর ইউনিয়নের দেউড়িয়া গ্রামের এক কৃষকের মেয়ে গোপালনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণীর স্কুল পড়ুয়া ছাত্রী । ওই ৭ম শ্রেণীর স্কুলছাত্রীকে একই এলাকার মজিবর রহমানের ছেলে মাসুদ রানা (৩৫) ও গোপাল নগর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ফজলুল হক বাবুর সহযোগীতায় ১৬ জুলাই তাদের গ্রামের রাস্তা থেকে অপহরণ করে। ওই স্কুলছাত্রী একই দিনে সকালে বাড়ি থেকে পার্শ্ববতি এলাকার কুনকইনা গ্রামের তারার নানার বাড়ি যাওয়ার উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিলেন।

এ ঘটনায় কিশোরী মা বাদি হয়ে ১২ আগস্ট ধুনট থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় মাসুদ ও ফজলুল হকসহ আরও ৫ জনকে আসামি করা হয়। গত ২৫ সেপ্টেম্বর ওই স্কুলছাত্রীকে সিরাজগঞ্জের চান্দাইকোনা এলাকায় থেকে তাকে উদ্ধার করেছেন তার আত্মীয়-স্বজনরা। উদ্ধার করে ওই কিশোরীর ডাক্তারি পরীক্ষা করা হয়। ডাক্তারি পরীক্ষার পর ধর্ষণের প্রমাণ মিলেছে।

ধুনট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কৃপা সিন্ধু বালা সংবাদকর্মীদের জানান, কিশোরী ধর্ষণের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় ২ সহযোগী ব্যক্তি কে গ্রেপ্তার করে বগুড়া কারাগারে পাঠানো হয়েছে। মামলার আরো পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তার করার চেষ্টা চলছে।