শুরুতেই পাবেন রানি এলিজাবেথ

ব্রিটেনে গণহারে টিকা দেয়া শুরু হচ্ছে আজ

3 মিনিটে পড়ুন
29

বগুড়া এক্সপ্রেস ডেস্ক

আমেরিকার ফাইজার এবং জার্মানির বায়োএনটেক সংস্থা মিলে যে প্রতিষেধক উদ্ভাবন করেছে, আজ সোমবার থেকে ব্রিটেনের হাসপাতালগুলোতে তার প্রয়োগ শুরু হচ্ছে। শুরুতেই দেশটির অশীতিপর ব্যক্তি, স্বাস্থ্যকর্মী এবং বাড়িতে রোগীদের দেখভাল করছেন যারা, তাদের টিকাদান করা হবে। দেশটির ৯৪ বছর বয়সি রানি এলিজাবেথ ও তার স্বামী ৯৯ বছর বয়সি প্রিন্স ফিলিপ শুরুতেই টিকা পাবেন বলে জানা গেছে। রাজপরিবারের সদস্য হওয়ার কারণে নয়, বরং অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বয়স্করা যে প্রথমেই টিকা পাবেন, সে সিদ্ধান্তের আলোকেই টিকা পাচ্ছেন ব্রিটেনে সর্বজনশ্রদ্ধেয় এ দুই ব্যক্তিত্ব। তারপর বিভিন্ন প্রান্তের ক্লিনিকগুলোতে প্রতিষেধক বিতরণ করা হবে, যাতে প্রয়োজন বুঝে সাধারণ মানুষের ওপর তা প্রয়োগ করা যায়। তবে টিকাদান কর্মসূচি শুরু হতে চললেও করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে তাদের প্রতিষেধক কতটা কার্যকর, সে ব্যাপারে শতভাগ নিশ্চিত নন ফাইজারের প্রধান নির্বাহী অ্যালবার্ট বোরলা। যদিও কার্যকারিতা নিয়ে তিনি খুবই আশাবাদী।

ব্রিটেনে এখনো পর্যন্ত ১৭ লাখের বেশি মানুষ কোভিড-১৯ ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন। করোনার প্রকোপে সেখানে প্রাণ হারিয়েছেন ৬১ হাজারের বেশি মানুষ। এ মুহূর্তে সেখানে দৈনিক সংক্রমণ ওঠানামা করছে ১৫ হাজারের ঘরে। এমন পরিস্থিতিতে প্রথম সারিতে থেকে মারণ ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়ছেন যারা, তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করাই সরকারের প্রধান লক্ষ্য। তাই জরুরি পরিস্থিতিতে ফাইজারের তৈরি প্রতিষেধক ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। জরুরি ভিত্তিতে ফাইজারের প্রতিষেধক প্রয়োগে গত সপ্তাহেই ছাড়পত্র দেয় ব্রিটেনের নিয়ন্ত্রক সংস্থা। ঠিক করা হয়, ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিসের (এনএইচএস) তত্ত¡াবধানে গোটা প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হবে। করোনার প্রতিষেধক নিয়ে

গোটা বিশ্বে যখন প্রতিযোগিতা চলছে, সে সময় ব্রিটেনই প্রথম দেশ, যারা জরুরি ভিত্তিতে টিকাদান শুরু করে দিল। প্রথম সপ্তাহেই ব্রিটেনে ৮ লাখ ডোজ পৌঁছে যাবে বলে জানা গেছে। বেলজিয়াম থেকে ইতোমধ্যেই প্রতিষেধক দেশে আসা শুরু করেছে। দেশের বিভিন্ন জায়গায় নিরাপদে সেগুলো মজুত করে রাখা হচ্ছে। নিরাপদে প্রতিষেধক মজুত রাখার ক্ষেত্রেও বিশেষ নজর দেয়া হচ্ছে।

ফাইজারের তৈরি প্রতিষেধকটি মাইনাস ৭০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রায় রাখা প্রয়োজন। সাধারণ যে রেফ্রিজারেটর, তাতে মোটে পাঁচ দিন রাখা যাবে ওই প্রতিষেধক। ব্যবহারের কয়েক ঘণ্টা আগে সেগুলো বের করে ডিফ্রস্ট করে নিতে হবে। আগামী ১৪ ডিসেম্বর থেকে সাধারণ মানুষের ওপর প্রয়োগের জন্য ক্লিনিকগুলোতে প্রতিষেধক সরবরাহ করা হবে। এদিকে গত শনিবারই ‘স্পুটনিক-ভি’ প্রতিষেধকের বিতরণ শুরু করেছে রাশিয়া। তাদের চূড়ান্ত পরীক্ষা শেষ না হলেও ইতোমধ্যেই মস্কোর ৭০টি ক্লিনিকে প্রতিষেধক পৌঁছে দেয়ার প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন দেশটির কর্তৃপক্ষ।