রাজশাহীকে হারিয়ে দ্বিতীয়স্থানে উঠে এলো সাকিব-মাহমুদুল্লাহর খুলনা5 মিনিটে পড়ুন

27

বগুড়া এক্সপ্রেস ডেস্ক

মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহীকে হারিয়ে বঙ্গবন্ধু টি-টুয়েন্টি কাপের পয়েন্ট টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে উঠে এলো জেমকন খুলনা। আজ টুর্নামেন্টের ১৪তম ম্যাচে জেমকন খুলনা ৫ উইকেটে হারিয়েছে রাজশাহীকে। এই জয়ে ৬ খেলায় ৪ জয় ও ২ হারে ৮ পয়েন্ট খুলনার। ৫ খেলায় ৪ জয় ও ১ হারে ৮ পয়েন্ট চট্টগ্রামের। খুলনার সাথে সমান পয়েন্ট হলেও, রান রেটে এগিয়ে চট্টগ্রাম।

মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের ম্যাচে টস জিতে প্রথমে রাজাশাহীকে ব্যাটিংএর আমন্ত্রন জানায় খুলনা। মোহাম্মদ আশরাফুলকে একাদশের বাইরে রেখে নিজের ইনিংস শুরু করে রাজশাহী। ইনজুরি কাটিয়ে টুর্নামেন্টে প্রথমবারের মত একাদশে ফিরেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন।
তবে ব্যাট হাতে নেমে দ্বিতীয় ওভারেই ধাক্কা খায় রাজশাহী। দ্বিতীয় বোলার হিসেবে আক্রমনে এসেই সাফল্যের দেখা পান স্পিনার শুভাগত হোম।
রাজশাহীর ওপেনার আনিসুল ইসলাম ইমনকে ১ রানের বেশি করতে দেননি শুভাগত।
শুরুতে ইমনকে হারালেও, পাওয়া-প্লের সুযোগটা ভালোভাবে কাজে লাগিয়েছেন অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত। তার ১৬ বলে ৩১ রানের সুবাদে পাওয়ার-প্লেতে ৪৭ রান পায় রাজশাহী।
সপ্তম ওভারে প্রথম বলে শান্তর সতীর্থ রনি তালুকদারকে বিদায় দেন খুলনার পেসার আল-আমিন হোসেন। ১৭ বলে ১৪ রান করেন রনি।
চার নম্বরে নেমে ব্যর্থ হয়েছেন হার্ড-হিটার মেহেদি হাসান। ১৫ বলে ৯ রান করে পেসার শহিদুল ইসলামের বলে আউট হন মেহেদি।
সতীর্থরা দ্রুত ফিরলেও, এক প্রান্ত আগলে এবারের আসরে দ্বিতীয় হাফ-সেঞ্চুরি তুলে নেন শান্ত। বাউন্ডারি মেরে ৩৩ বলে হাফ-সেঞ্চুরির স্বাদ নেন শান্ত। তবে হাফ-সেঞ্চুরির পর এবারও ৫৫ রানে থামেন রাজশাহীর অধিনায়ক। এবারের আসরে শান্তর প্রথম হাফ-সেঞ্চুরির ইনিংসটিও ছিলো ৫৫ রানের। আজ ৬টি চার ও ২টি ছক্কা মারেন শান্ত। রাজশাহীর অধিনায়ককে থামান খুলনার দলনেতা মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।
শান্তর পর দলীয় ৯৩ রানে ফজলে মাহমুদ নামের পাশে ৯ রান রেখে বিদায় নিলে জুটি বাঁধেন উইকেটরক্ষক নুরুল হাসান ও জাকের আলি। তখন ইনিংসের ৩৭ বল বাকী ছিলো।
এরপর বাকী ৩৭ বলে অবিচ্ছিন্ন ৫২ রানের জুটি গড়েন নুরুল ও জাকের। ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৪৫ রানের সংগ্রহ পায় রাজশাহী। ২১ বলে ৩টি চার ও ২টি ছক্কায় ৩৭ রানে অপরাজিত থাকেস সুরুল। ১৯ বলে ১টি ছক্কায় অপরাজিত ১৫ রান করেন জাকের। খুলনার শুভাগত ২৫ রানে ২ উইকেট নেন। ৪ ওভারে ১৭ রান দিয়ে উইকেট শুন্য ছিলেন সাকিব।
জয়ের জন্য ১৪৬ রানের লক্ষ্যে দলকে শুভ সূচনা এনে দেন খুলনার দুই ওপেনার জহিরুল ইসলাম ও জাকির হাসান। ৫১ বলে ৫৬ রানের জুটি গড়েন তারা। এরমধ্যে ১৯ রান করেন জাকির। বড় ইনিংস খেলার ইঙ্গিত দিয়েও ৪৩ রানে থামেন জহিরুল। তার ইনিংসে ৬টি চার ও ১টি ছক্কা ছিলো।
জহিরুলের মত ভালো শুরু ছিলো তিন নম্বরে নামা ইমরুল কায়েসেরও। কিন্তু ২৭ রানে থেমে যান তিনি। ২০ বল খেলে ৩টি চার ও ১টি ছক্কা মারেন ইমরুল। দলীয় ৯৪ রানে ইমরুলের বিদায়ের পর ১০৯ রানের মধ্যে আরও ২ উইকেট হারায় খুলনা।
এর মধ্যে ছিলেন সাকিব ও শামিম হোসেন। সাকিব ৪ ও শামিম ৭ রান করেন। সাকিবকে শিকার করেন টুর্নামেন্টে প্রথমবারের মত মাঠে নামা সাইফউদ্দিন।
পঞ্চম উইকেট পতনের পর দলকে জয়ের বন্দরে নেয়ার দায়িত্বটা ভালোভাবে পালন করেন অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ ও আরিফুল হক। ষষ্ঠ উইকেটে অবিচ্ছিন্ন ৩৭ রান যোগ করে ৪ বল বাকী রেখে খুলনার জয় নিশ্চিত করেন তারা।
১৯ বলে ৩টি চার ও ১টি ছক্কায় অপরাজিত ৩১ রান করে ম্যাচ সেরা হন মাহমুুদুল্লাহ। ১০ রানে অপরাজিত থাকেন আরিফুল। রাজশাহীর মুকিদুল ইসলাম ২টি উইকেট নেন।
সংক্ষিপ্ত স্কোর :
মিনিস্টার রাজশাহী : ১৪৫/৫, ২০ ওভার (শান্ত ৫৫, নুুরুল ৩৭*, শুভাগত ২/২৫)।
জেমকন খুলনা : ১৪৬/৫, ১৯.২ ওভার (জহিরুল ৪৩, মাহমুদুল্লাহ ৩১*, শুভাগত ২/২৫)।
ফল : জেমকন খুলনা ৫ উইকেটে জয়ী।
ম্যাচ সেরা : মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ (জেমকন খুলনা)।