ফোন করে ডেকে হত্যা, তোশকে মোড়ানো হলো লাশ3 মিনিটে পড়ুন

30

বগুড়া এক্সপ্রেস ডেস্ক

ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ায় মোবাইলফোনে ডেকে নিয়ে রুবেল হোসেন (২৮) নামের এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষরা। শনিবার রাতে উপজেলার উত্তর বলতলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। হত্যার পরে লাশ তোশকে মুড়িয়ে সরিয়ে ফেলার পরিকল্পনা করা হচ্ছিল। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে স্থানীয় বাবুল হাওলাদারের ঘরের ভেতর থেকে লাশ উদ্ধার করে।

এ ঘটনায় বাবুল হাওলাদারের স্ত্রী খাদিজা বেগমকে (৩০) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ। নিহত রুবেল ওই গ্রামের মৃত আবদুল বারেক খানের ছেলে। পুরনো বিরোধের জেরে এ হত্যার ঘটনা ঘটেছে বলে পুলিশ জানায়।

পুলিশ ও নিহতের পরিবারের সদস্যরা জানায়, শনিবার সন্ধ্যায় রুবেল খান ও তাঁর বড় ভাই মামুন খান স্থানীয় সাতানী বাজার থেকে বাড়ি ফিরছিল। এ সময় একই এলাকার বাবুল হাওলাদার মোবাইল ফোনে রুবেলকে তাঁর বাড়িতে যেতে বলেন। রুবেল তাদের বাড়িতে গেলে তাকে ঘরের ভেতর আটকে এলোপাতারি কুপিয়ে হত্যা করা হয়। পরে লাশ তোশকে মুড়িয়ে লুকানোর চেষ্টা করছিল খুনিরা। খবর পেয়ে নিহতের ভাই ওয়ালিদ খান ওই বাড়িতে গেলে বাবুলের স্ত্রী খাদিজা বেগম তাকেও কুপিয়ে হাতের কবজি কেটে দেয়।

এ ঘটনায় রাতেই ঝালকাঠির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. হাবীবুল্লাহ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে বাবুলের স্ত্রী খাদিজা বেগমকে আটক করে পুলিশ। তবে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে বাবুল পালিয়ে যায়।

নিহতের ভাই মামুন খান বলেন, ‘বাবুল হাওলাদারের সঙ্গে ধানকাটা নিয়ে পুরনো বিরোধ ছিল রুবেল খানের সঙ্গে। এনিয়ে বাবুলের সঙ্গে কয়েকদিন ধরে দ্বন্দ্ব চলছিল। বাবুল ও তার স্ত্রী আমার ভাইকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে।’

কাঁঠালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পুলক চন্দ্র রায় বলেন, নিহত রুবেলর মা লুৎফুন্নার বেগম বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। রবিবার সকালে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ঝালকাঠি সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

২০১৮ সালে রুবেলের অপর ভাই রাসেল খানকে পার্শ্ববতী পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া উপজেলার পূর্ব মাটিভাঙা এলাকায় কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্ত। এছাড়াও আট বছর আগে রাজাপুর উপজেলার গাজীরহাট এলাকার শ্বশুরবাড়ি থেকে নিজ বাড়ি ফেরার পথে উত্তর চড়াইল এলাকায় লাঠির পিটুনিতে রুবেলের বাবা আবদুল বারেক খান নিহত হয়েছিলেন।