সিলেট ক্রিকেট স্টেডিয়াম গ্রাউন্ড-২ এর আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির আবেদন3 মিনিটে পড়ুন

32

অনলাইন ডেস্ক

দেশের সবচেয়ে সুন্দর ক্রিকেট ভেন্যু হিসেবে তকমা পায় লাক্কাতুরা চা বাগান ঘেরা সিলেট ক্রিকেট স্টেডিয়াম। ২০০৭ সালে স্থাপিত এই স্টেডিয়াম ২০১৪ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ভেন্যু হিসেবে স্বীকৃতি পায়। তারপরের গল্পটা মধুর। এই মাঠের পাশে রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান লাক্কাতুরা চা বাগানের একটি পরিত্যক্ত টিলা এলাকায় আউটার স্টেডিয়াম গড়ে তোলার লক্ষ্যে অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে শেষ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপে ৯ একর ভূমি গ্রহণ করে ক্রীড়া মন্ত্রণালয়।

আউটার স্টেডিয়াম নামে পরিচিতি পেলেও পুরো খেলা চালানোর মতো ব্যবস্থা নিয়ে শেষ পর্যন্ত গড়ে উঠেছে সিলেট ক্রিকেট স্টেডিয়াম গ্রাউন্ড-২। শনিবার (২৩ জানুয়ারি) উদ্বোধন শেষে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল এই স্টেডিয়াম আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেতে কাজ করার প্রতিশ্রুতি দেন।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল বলেন, ১ হাজার ১ টাকায় ক্রীড়া মন্ত্রণালয়কে প্রতীকী মূল্যে এই জমি বরাদ্দ দেওয়া হয়। তারপর সেই জমিতে ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সেই জমিতে পরিকল্পনা করে কাজ শুরু করে এবং স্টেডিয়ামটি তৈরি হয়।

অনুশীলন মাঠ, ডরমেটরি, ক্রিকেট একাডেমি, স্কুল, মসজিদ, গ্রিন গ্যালারিসহ সব আয়োজন রয়েছে এই মাঠে। জাতীয় ক্রিকেটার এবং ক্রিকেট কোচ ও সংগঠকরা মনে করেন, এটা ক্রিকেটারদের জন্য একটা বড় যুগান্তকারী সুযোগ।

সিলেট ক্রিকেট স্টেডিয়াম গ্রাউন্ড-২-কে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম স্বীকৃতি পেতে সকল আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, ইতোমধ্যে ক্রিকেট বোর্ড থেকে আইসিসির কাছে আবেদন করা হয়েছে। আমরা আশা করছি এটা খুব শিগগিরই এটা আন্তর্জাতিক ভেন্যু হিসেবে স্বীকৃতি পাবে।

শনিবার বিকেলে সিলেট ক্রিকেট স্টেডিয়াম গ্রাউন্ড-২-এর উদ্বোধন করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন ও যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল।