বগুড়ার সদরের পীরগাছা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতির বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ !3 মিনিটে পড়ুন

54

সাইদুর রহমান সাজু, মহাস্থান, বগুড়া থেকে: : বগুড়া সদরের পীরগাছা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বরাদ্দকৃত ২:লক্ষ টাকা ক্ষুদ্র মেরামতের কাজ শেষ হতে না হতেই ৮০ হাজার টাকা উত্তোলন করে তছরুপের অভিযোগ উঠেছে।

সরে জমিনে, অভিভাবক ও স্কুলের সাবেক সভাপতি সুত্রে জানা গেছে গত মাসে পীরগাছা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন ছাড়াই সকলের সমন্বনে কমিটি গঠন হয়। গঠনের পর থেকেই বর্তমান কমিটির সভাপতি রেজাউল করিম পান্না আকন্দের বিরুদ্ধে সেচ্ছা চারিতা ও ক্ষমতা অপব্যবহারের অভিযোগ উঠে। সরকারী ভাবে স্কুলের ক্ষুদ্র মেরামতের জন্য ২লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। এর মধ্যে সভাপতি স্কুলের বির্ডিং এর উপরে বিভিন্ন মনিষি ও রাজনীতিবিদের ৪জনের ছবি টাঙ্গানো, পূর্ব পাশে দেওয়াল রাইটিং এর কাজ করে ইতিমধ্যে ব্যাংক থেকে অনুমান লক্ষাধিক টাকা উত্তোলন করেছেন।। এর মধ্যে ১০/১৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছে বলে সদস্যরা জানান। খরচের ক্রয় কমিটি গঠন করা হলেও তাদের কাছে থেকে কোন পরামর্শ না নিয়েই সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক নিজেরাই কাজ করছে।সভাপতি বলছে আমি নিজেই কাজ করব, কারো কোন ক্ষমতা থাকলে আমার কাজ বন্ধ করতে এসো? শুধু তাই নয়, এলাকার কিছু সমাজ সেবক ব্যক্তি রহেন্দ্র, ভাদু, গজেন্দ্র গন স্কুলে কয়েক শতক জমি দান করে, তা স্কুলের নামে রেকর্ডও হয়। বর্তমানে তাদের পুত্র ও ওয়ারিশগণ জমি উদ্ধারের জন্য মামলা করে, সাবেক সভাপতি খলিলুর রহমান মামলা পরিচালনা করতে থাকলে বর্তমান সভাপতির সাথে জমির মালিকগণ মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে আতাত করে মামলায় হাজিরা দেওয়া বন্ধ করে বলে সাবেক সভাপতি অভিযোগ করেন। এব্যাপারে প্রধান শিক্ষকের সাথে মোবাইলে কথা বলার চেষ্টা করলে তিনি ফোন রিচিব করেননি।কমিটির সভাপতি রেজাউল করিম পান্না আকন্দের সাথে কথা বলল তিনি জানান আমার কোন বক্তব্য নেই, আমার বিরুদ্ধে যত খুশি লেখেন,। অভিভাবকেরা জানান, কাজ শেষ হতে না হতেই সভাপতি দূর্নিতী শুরু করেছে।তার ক্ষমতার জোর কোথায়? তার বিরুদ্ধে তদন্ত করে দুর্নিতী হয়ে থাকলে তার ব্যবস্থা নিয়ে স্কুলের বাকী কাজ দ্রুত বন্ধ করে সরকারী ভাবে তদারকির মাধ্যমে কাজ করার আহবান জানান অভিভাবক ও এলাকার অভিজ্ঞ মহল।